টিভির পর্দায় বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসব ২০১৩

বিদুষী বোম্বে জয়শ্রীর পরিবেশনা

২ জানুয়ারি রাত ৯টা, মাছরাঙা টেলিভিশন

মাছরাঙা টেলিভিশনে প্রতি শুক্র ও শনিবার প্রচারিত হচ্ছে উচ্চাঙ্গ সংগীতের অন্যতম বৃহৎ উৎসব ‘বেঙ্গল উচ্চাঙ্গ সংগীত উৎসব ২০১৩’-এর ধারণকৃত অংশ। গত বছরের ২৮ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত চার দিনব্যাপী ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ উৎসবে উপমহাদেশের শতাধিক খ্যাতিমান শিল্পী সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন। ২ জানুয়ারি রাত ৯টায় প্রচারিত হবে বিখ্যাত উচ্চাঙ্গসঙ্গীতশিল্পী বোম্বে জয়শ্রীর পরিবেশনা ।২০১৩ সালের উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসবে দ্বিতীয় দিনে সংগীত পরিবেশন করেন বিদুষী বোম্বে জয়শ্রী।

বোম্বে জয়শ্রী’র প্রকৃত নাম জয়শ্রী রামনাথ। তিনি কর্নাটকী বা দক্ষিণ-ভারতীয় শাস্ত্রীয়সংগীত ঘরানার কন্ঠসংগীতশিল্পী। কোলকাতায় জন্মগ্রহণ করা এই শিল্পী বেড়ে উঠেছেন মুম্বাই শহরে।

পারিবারিকভাবে সংগীত শিক্ষা অনুকূল পরিবেশ পেয়েছেন এই শিল্পী। তাঁর পিতা-মাতা দুজনই ছিলেন সংগীত প্রেমী এবং জয়শ্রী’র কর্নাটকি সংগীতের শিক্ষা শুরু হয় পিতা-মাতা’র তত্বাবধানে। স্কুল জীবনে টি. আর বালামনি’র কাছে তিনি দশ বছর সংগীত সাধনা করেন। শ্রী মহাবীর জয়পুরভালে এবং শ্রী অজয় পোহাংকার-এর কাছে তিনি ছয় বছর হিন্দুস্তানী সংগীত বা উত্তর-ভারতীয় শাস্ত্রীয়সংগীতে তালিম নেন।

জয়শ্রী পরবর্তীতে চেন্নাই শহরে শহরে আসেন যেখানে তিনি গুরু লালগুড়ি জয়রমন-এর শীষ্যত্ব গ্রহণ করেন। লালগুড়ি জয়রমন মূলত বেহালাশিল্পী হলেও তাঁর শিক্ষার প্রভাব ছিল জয়শ্রী’র সংগীত জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। জয়শ্রী বীণা বাদনা শিখেন জি. এন. ধানপাণ্ডির কাছে।


বোম্বে জয়শ্রী প্রথম মঞ্চে সংগীত পরিবেশন করেন ১৯৮২ সালে। বর্তমানে তিনি ভারতের শীর্ষস্থানীয় শাস্ত্রীয়সংগীতশিল্পীদের একজন। শাস্ত্রীয়সংগীত চর্চার পাশাপাশি তিনি চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক শিল্পী হিসেবেও কাজ করেছেন। কাজ করেছেন বলিউড এবং হলিউডে। ২০১৩ সালে তিনি এং লি পরিচালিত বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘লাইফ অফ পাই’-এর প্লেব্যাক শিল্পী হিসেবে অস্কার চলচ্চিত্র উৎসবে ‘বেস্ট অরিজিনাল সং’ পুরস্কার জিতে নেন।

সাতদিন/এমজেড/১জানুয়ারি২০১৫


সঙ্গীত

 >  Last ›