আন্দোলনের ফলে সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পেল ‘দি ডিরেক্টর’

কবি ও নির্মাতা কামরুজ্জামান কামুর প্রথম চলচ্চিত্র দি ডিরেক্টর প্রদর্শনের জন্য অবশেষে সেন্সর ছাড়পত্র দিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সরবোর্ড। একটি দৃশ্য কর্তন শর্তে গত ৮ জানুয়ারি চলচ্চিত্রটিকে সেন্সর ছাড়পত্র দেওয়া হয়। দীর্ঘ আন্দোলনের ফলে এই সেন্সর ছাড়পত্র পেল ছবিটি। বাংলাদেশে প্রথম কোন চলচ্চিত্রের জন্য সেন্সরবোর্ড ঘেরাও ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছিল। এই আন্দোলন পরিচালনা করে দি ডিরেক্টর মুক্তি আন্দোলন নামে একটি সংগঠন। গত বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ‘মানববন্ধন’ কর্মসূচিতে সেন্সর প্রথা সংস্কার ও দি ডিরেক্টর চলচ্চিত্র মুক্তির দাবিতে গড়ে ওঠা এ আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করেছিলেন দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের চলচ্চিত্র সংসদ ও সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা।

উল্লেখ্য, গত বছর ১১ ফেব্রুয়ারি সেন্সর ছাড়পত্রের জন্য নির্মাতা চলচ্চিত্রটি জমা দেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডে। বোর্ড চলচ্চিত্রটি দেখার পর একটি লিখিত চিঠির মাধ্যমে এই চলচ্চিত্রের পরিচালককে জানায় যে চলচ্চিটি প্রদর্শনের উপযোগী নয়। সেন্সর বোর্ডের চিঠিতে বলা হয়, পরীক্ষান্তে দেখা যায়, চলচ্চিত্রটিতে মূল কাহিনী অপর্যাপ্ত, এতে অশ্লীল সংলাপের ব্যবহার রয়েছে, একটি সাংস্কৃতিক পেশার গোষ্ঠীকে হেয়ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, চলচ্চিত্র শিল্পের প্রতি সাধারণ মানুষের ঘৃণা জন্মায় এমনভাবে কাহিনী চিত্রায়ন, আগ্নেয়াস্ত্রের যথেচ্ছ ব্যবহার আছে এতে। পাশাপাশি নির্বিচারে মানুষ হত্যা, আইনহীনতা ও লাম্পট্য জীবন-যাপনকে স্বাভাবিক ঘটনা হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

গ্রাম থেকে আসা এক যুবকের চলচ্চিত্র পরিচালক হওয়ার স্বপ্ন পূরণের পথে নানা ঘাত-প্রতিঘাতের গল্প নিয়ে গড়ে উঠেছে ‘দি ডিরেক্টর’ ছবির কাহিনি। ছবিটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন পপি, মারজুক রাসেল, নাফা, কচি খন্দকার, তারেক মাহমুদ, মোশাররফ করিম, সুইটি, নাফিজা, বাপ্পি আশরাফ, কামরুজ্জামান কামু প্রমুখ।

সাতদিন/এমজেড/১০জানুয়ারি২০১৫