‘নন্দন মঞ্চ’ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

১২ থেকে ১৪ জানুয়ারি

শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণ, সেগুনবাগিচা, ঢাকা

১২ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টায় শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে নবনির্মিত ‘নন্দন মঞ্চ’ উদ্বোধন করবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সংস্কৃতি মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জমান নূর, এম.পি। উক্ত নন্দন মঞ্চের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আগামী ১২ থেকে ১৪ জানুয়ারি ২০১৫ বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তিনদিনব্যাপী বর্ণাঢ্য এই সাংস্কৃতিক আয়োজনের অংশ হিসেবে থাকছে একক সঙ্গীত, সমবেত সঙ্গীত, সমবেত নৃত্য, নৃত্যলেক্ষ্য, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নৃত্য পরিবেশনা, সংযাত্রা, কাওয়ালী, ফিউশন যন্ত্র সঙ্গীত ও তালবাদ্য সমবেত পরিবেশনা।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকী এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস, এনডিসি এবং শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি বিভাগের পরিচালক জনাব সোহরাব উদ্দিন।

উল্লেখ্য, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১২ সালে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীতে অনুষ্ঠিত ‘মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক জাতীয় নাট্যোৎসব’ উদ্বোধন করতে এসে একাডেমী মাঠের দক্ষিণ পাশে পরিত্যক্ত পুকুর দেখেন। পুকুরটি দেখে তিনি মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীকে নান্দনিক কিছু একটা করার প্রস্তাব দেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গত মার্চ মাস থেকে নির্মিত হচ্ছে শিল্পকলা একাডেমী চত্বরের প্রথম নন্দন মঞ্চ।

ঢাকার বুকে নির্মিত এই নন্দনমঞ্চের নির্মাণ ব্যয় ১ কোটি ৮ লক্ষ ২৬ হাজার টাকা। মঞ্চের দু’পাশে রয়েছে গ্রীণরুম, লাইট স্ট্যান্ড। এই মঞ্চে বিশেষ বিশেষ দিনে বড় ধরণের যেকোন আয়োজন হতে পারে। এই মঞ্চটির চারপাশে থাকবে নান্দনিক ঝর্ণা, পানির নীচে রং বেরঙের আধুনিক লাইট। মঞ্চ ও জলাধারকে ঘিরে করা হচ্ছে এক থেকে দেড় হাজার দর্শকের বসার ব্যবস্থা।

একাডেমীতে বিশাল আকৃতির ভবনসমূহ নির্মাণ হলেও এখানে কোন বৃহৎ আকারের কোন জলাধার নেই। দূর্ঘটনাবশত কোন অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে তা নির্বাপনের জন্য প্রয়োজনীয় পানির সরবরাহের ব্যবস্থা নেই। নন্দনমঞ্চটি নির্মাণের ফলে একদিকে যেমন সৌন্দর্য বর্ধন হবে, অন্যদিকে অগ্নি প্রতিরোধেরও সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। সংস্কারকৃত পুকুরটিতে নন্দনমঞ্চের নীচে মোট ১৫টি ওয়াটার ফাউন্টেন থাকবে।

সাতদিন/এমজেড/১১জানুয়ারি২০১৫


প্রদর্শনী

 >  Last ›