রাত ৮টা, ২৫ মে, জিটিভি

আব্দুস সাত্তার খানকে নিয়ে বাঙালী বিশ্বময়

উপস্থাপনা: রোকেয়া প্রাচী
প্রযোজনা: অরিন্দম মুখার্জি বিংকু


পরিবর্তনশীল পৃথিবীকে সুন্দর ও বাসোপযোগী করতে বিজ্ঞানীদের অবদান সবচেয়ে বেশি। যাঁদের কারণে আমরা আজ এই সুন্দর বাসস্থান পেয়েছি তাঁদেরই একজন আব্দুস সাত্তার খান। বিখ্যাত মহাকাশ গবেষক আব্দুস সাত্তার কাজ করেছেন নাসা, ইউনাইটেড টেকনোলজিসের প্ল্যাট এন্ড হুইটনি এবং অ্যালস্টম-এর মত আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রতিষ্ঠানে। তিনি ৪০টিরও বেশি সংকর ধাতু উদ্ভাবন করেছেন। এই সংকর ধাতুগুলো ইঞ্জিনকে আরো হালকা করেছে, যার ফলে উড়োজাহাজের পক্ষে আরো দ্রুত উড্ডয়ন সম্ভব হয়েছে এবং ট্রেনকে আরো গতিশীল করেছে।

বিজ্ঞানী আবদুস সাত্তার ১৯৪১ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে রসায়নে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর তিনি ১৯৬৪ সালে অক্ষফোর্ড বিশ্বিবিদ্যালয়ে পিএইচডি গবেষণা করতে যান। ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করে তিনি দেশে ফিরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। তারপর তিনি ধাতব প্রকৌশল নিয়ে গবেষণা করতে যুক্তরাষ্ট্রে যান এবং ইউরোপ ও আমেরিকার বিখ্যাত সব প্রতিষ্ঠানে গবেষণার কাজে নিযুক্ত থাকেন। তাঁর উদ্ভাবিত সংকর ধাতু এফ-১৬ ও এফ-১৭ জঙ্গি বিমানে ব্যবহৃত হয়। তিনি ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির যন্ত্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০০৮ সালের ৩১ জানুয়ারী ৬৭ বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা শহরে এই গুনী বাংলাদেশীর মৃত্যু হয়। বাঙালী বিশ্বময়ের এবারের পর্ব সাজানো হয়েছে গুনী এই বাংলাদেশীর জীবন এবং কর্ম নিয়ে।



সাতদিন/এমজেড

২৫ মে ২০১৫

ডকুমেন্টারি

 >  Last ›