চিৎকার-এর প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ উপলক্ষে কনসার্ট

১০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টায়

স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

গানের দল চিৎকার-এর প্রথম অ্যালবাম ‘চিৎকার’ প্রকাশিত হচ্ছে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫। এদিন সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে ‘জীবনের কাছে আজ, জীবনের মানে চাই’ শিরোনামে প্রকাশনা উৎসবে অ্যালবামটির গানগুলো গাইবে চিৎকার। এ ছাড়া এই আয়োজনে চিৎকারের পাশাপাশি চিৎকারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে গান গাইবে সহজিয়া, অন্যস্বর, সপ্তসিন্ধু, সূর্যসারথি, কফিল আহমেদ এবং চিৎকারের আরও বন্ধু শিল্পীরা।

অনুষ্ঠানে চিৎকারের গান নিয়ে কথা বলবেন শিল্পসমালোচক-শিক্ষক ইমরান ফিরদাউস, রাজনৈতিক কর্মী ও লেখক বাকী বিল্লাহ, সংস্কৃতিকর্মী রফিকুল্লাহ রোমেল সানা, সংস্কৃতিকর্মী-সাংবাদিক আহমেদ মুনীরুদ্দিন তপু, সংস্কৃতিকর্মী-যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ বিপ্লব মোস্তাফিজ এবং কবি-সংগীতশিল্পী কফিল আহমেদ।

চিৎকার অ্যালবামের নয়টি গানেরই গীতিকার ও সুরকার পদ্ম। চিৎকারের বর্তমান সদস্যরা হলেন— পদ্ম (ভোকাল ও মন্দিরা), রাব্বী (গিটার), সজীব (গিটার), অতনু (গিটার), শুভ (বেইজ), তুহিন (ড্রামস)। অ্যালবামটির সব গানের রেকর্ডিং ও মিক্সিং হয়েছে ‘বাটার কমিউনিকেশন’ স্টুডিওতে। মাস্টারিং হয়েছে ‘মিউজিক রুম স্টুডিও’ (ভারত)-তে। সবগুলো গানেরই রেকর্ডিস্ট ছিলেন অনিক আহমেদ। এই অ্যালবামের মিউজিক ও সাউন্ড প্রডিউসার পাভেল আরিন। অ্যালবাম প্রকাশক জি-সিরিজ। তরুণ প্রজন্মের কাছে ইতোমধ্যেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠা চিৎকারের এই অ্যালবামের গানগুলো হলো— যত দূর, হাতে হাত, হাট্টিমাটিম টিম, নদীর মত চলি, চলতি হাওয়া, রাত যায়, একা একা দিন, বৃষ্টি আসছে ও এখন ভাঙচুরের সময়।

এটা প্রথম অ্যালবাম হলেও প্রায় এক দশক ধরেই গান গেয়ে যাচ্ছে চিৎকার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে ঘিরে চিৎকারের গানের যাত্রা শুরু হলেও দ্রুতই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গান করতে শুরু করে চিৎকার। ইতোমধ্যেই টেলিভিশন এবং রেডিও স্টেশনগুলোর মাধ্যমে সারা দেশের শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে গিয়েছে চিৎকারের গান। বিগত সময়ের বিভিন্ন ছাত্র-আন্দোলনসহ নানান সামাজিক সাংস্কৃতিক আন্দোলনে গান নিয়ে সক্রিয় উপস্থিতি ছিল চিৎকারের। জি-সিরিজ থেকে প্রকাশিত চিৎকার অ্যালবামটি ১০ ফেব্রুয়ারি থেকেই সারাদেশে পাওয়া যাবে।

সাতদিন/এমজেড


সঙ্গীত

 >  Last ›