ramer sumoti রামের সুমতি
১৫ জুলাই সকাল ৮.৩০, জি বাংলা সিনেমা


 

কথা সাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টপাধ্যায়ের গল্প অবলম্বনে তৈরি হয় সিনেমা ‘রামের সুমতি’। শ্যামলাল ও রামলাল সৎভাই। শ্যামলাল বয়সে রামের অনেক বড়। শ্যামলালের বউ নারায়নী আড়াই বছর বয়স থেকে রামকে কোলে পিঠে করে মানুষ করেছে। রামের কাছে বউদি মায়ের মত। রামের বয়স ১৬। খুবই দুষ্টু সে। পাড়ার সকলেই মোটামুটি তার দুষ্টুমিতে অতীষ্ঠ। নারায়ণী একবার খুব অসুস্থ হয়ে পড়ে। সাতদিন চলে গেলেও তার জ্বর কমে না। রামলাল ডাক্তারকে হুশিয়ারী দিয়ে আসে। ভাল কুইনান দিয়ে বউদির জ্বর না কমাতে পারলে তার আমবাগানের রক্ষা হবে না। এদিকে নারায়ণীর মা দিগম্বরী রামের সাথে খুব খারাপ ব্যবহার করতে থাকে। সে রামের লাগানো অশ্বথ গাছ উপড়ে ফেলে। রামের দুইটি পোষা মাছ ছিল-কার্তিক ও গনেশ। দিগম্বরী বাঘা মাঝিকে দিয়ে রামলালের পোষা একটি মাছ খাওয়ার জন্য ধরে। রামলাল এসব মেনে নিতে পারে না। একদিন সে রেগে গিয়ে বুড়ির দিকে পেয়ারা ছুড়ে মারে কিন্তু লাগে গিয়ে নারায়ণীর কপালে। শ্যামলাল তিক্ত হয়ে রামকে আলাদা করে দেন। কিন্তু নারায়ণীর মাতৃস্নেহ কখনই তাকে ত্যাগ করতে পারে না। কৈলাশ কুমারী পরিচালিত সিনেমায় অভিনয় করেছেন মালিনী দেবী, ছবি রায়, রাজলক্ষী দেবী, শিশির ভট্টবল প্রমুখ।
সাতদিন/পিকে


মুভি

 >  Last ›