রাত ৮টা এটিএন বাংলা

সাহেব-বাবুর বৈঠকখানা

রচনা: শাহ্জাহান সৌরভ
চিত্রগ্রহন: আনোয়ার হোসেন বুলু
পরিচালনা: জাহিদুল ইসলাম

অভিনয় করেছেন- জাহিদ হাসান, রোমানা, আজিজুল হাকিম, সুমনা সোমা, আতাউর রহমান, জাহিদ হোসেন শোভন, সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক, তোফা হাসান, হাসান ফেরদৌস জুয়েল, কাজী উজ্জল, লীনা ফেরদৌসী, তারিক স্বপন, সাব্বির আহমেদ, ওয়াসিম, অবিদ রেহান, স্বর্ণা, জলি আহমেদ, মোহনা ইসলাম, রীমু, সৌরভ, মৃদুল হাসান, আনিছুর রহমান, মমিন বাবু, আবীর


গ্রামের নাম ফুলছোটা। হাসি-আনন্দে ভরপুর সেই গ্রামেরই ২ বন্ধু সাহেব আর বাবু। সেই ছোট্টবেলার বন্ধু ওরা। জীবনের প্রয়োজনে আজ দু’জন ২ জগতের মানুষ হলেও, তাদের বন্ধুত্বে কখনও ভাটা পড়েনি। সাহেব, এলাকার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আর বাবু ডিগ্রী পাশ করার পর বইয়ের ব্যবসা করছে। কলেজে পড়বার সময় বাবু থিয়েটার দেখেছে কিন্তু গোঁড়া ধার্মিক বাবার ভয়ে কখনও থিয়েটারে ভর্তি হতে পারেনি। তবে, থিয়েটার নিয়ে তার স্বপ্নটা মরে যায়নি বরং দিনে দিনে সেটা চারাগাছ থেকে মহীরুহ হয়েছে। আর তারই ফসল, ফুলছোটা থিয়েটার- একটি মননশীল শিল্প ও সাহিত্য চর্চা কেন্দ্র। খুব গোপনে গ্রামে এই থিয়েটার শুরু করেছে বাবু আর এ ব্যাপারে তাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছে সাহেব। কিন্তু দ্বন্দ্ব শুরু হয় যখন সাহেবের গোপন ইচ্ছাটা আর গোপন থাকেনা, তখন। সাহেবের ইচ্ছা ছিল এই থিয়েটারটি তার দলের একটা আউটপোস্ট হবে। সেজন্যই থিয়েটারের পেছনে এত শ্রম দিয়েছে সাহেব কিন্তু বাবু সেটা চায়না। সে চায় তার থিয়েটার কেবল থিয়েটারই হবে, যেখানে গ্রামের ছেলে-মেয়েরা শিল্প ও সাহিত্য চর্চা করবে। এভাবেই আদর্শিক জায়গা থেকে দ্বন্দ্ব শুরু হয় ২ বাল্যবন্ধুর। এই দ্বন্দ্বে জড়িয়ে যায় এলাকার প্রবীণ রাজনীতিবিদ বাহার ভাই এবং ঘটনাক্রমে তিনি খুন হন খুব রহস্যজনকভাবে। সে খুনের রহস্য উদঘাটন হয়না সহজে কিন্তু বাহার ভাইয়ের প্রেতাত্মা বিভিন্ন সময় হানা দিতে থাকে নির্দিষ্ট কিছু মানুষের জীবনে। তবে কি খুনের সাথে সেই লোকগুলোর কোন সম্পর্ক আছে? বাহার ভাই কি সত্যিই খুন হয়েছিল? ফুলছোটার মতে ছোট একটা গ্রামে ড. হাসিবুলের আসার কারণ কি?


রুমানা’র বাবা স্কুল শিক্ষক। মুক্তমনা এই মানুষটি তার মেয়েকে থিয়েটারের ব্যাপারে উৎসাহী করেন। কিন্তু স্বামী পরিত্যাক্ত রুমানা থিয়েটার করতে গিয়ে যখন পুরনো বন্ধু বাবু’র সাথে ঘনিষ্ঠ হয় তখন কি সমাজের লোকেরা চুপ করে থাকবে? বাবুর গোঁড়া ধার্মিক বাবাও কি এসব মেনে নেবে? সাহেবের স্ত্রী দিনদিন কেন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছে? কেন কোন ডাক্তার তার রোগ সারাতে পারছেনা? সাহেব কেন আত্মপীড়নে ভুগছে? কোন অপরাধের জন্য নিজেকে দায়ী করছে সে বারবার? ছদ্মবেশী পুলিশ কেন বাবুর দোকানের কর্মচারী’র সাথে এত মিশছে? তার উদ্দেশ্য কি? দ্বন্দ্বে চূড়ান্তে গিয়ে নিজের রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে ফুলছোটা থিয়েটারটি বন্ধ করে দেয় সাহেব। এখন বাবু’র সামনে আর কোন পথ খোলা থাকেনা, বিরোধী দলীয় রাজনীতিতে যোগ দেয়া ছাড়া। রাজনীতির করাল গ্রাস থেকে থিয়েটারকে বাঁচাতে গিয়ে নিজেই রাজনীতির অংশ হয়ে ওঠে বাবু। সে কি সফল হবে, তার থিয়েটার বাঁচাতে? এসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে “সাহেব-বাবু’র বৈঠকখানা” শিরোনামের ধারাবাহিকে। প্রতি পর্বেই কিছু টুইস্ট রেখে যাওয়া এবং রসাত্মক দৃশ্যের মাধ্যমে সামাজিক ইস্যুর দিকে দৃষ্টিপাত করাই এ নাটকের উদ্দেশ্য।

ধারাবাহিকটিতে অভিনয় করেছেন- জাহিদ হাসান, রোমানা, আজিজুল হাকিম, সুমনা সোমা, আতাউর রহমান, জাহিদ হোসেন শোভন,সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক, তোফা হাসান, হাসান ফেরদৌস জুয়েল, কাজী উজ্জল, লীনা ফেরদৌসী, তারিক স্বপন, সাব্বির আহমেদ, ওয়াসিম, অবিদ রেহান, স্বর্ণা, জলি আহমেদ, মোহনা ইসলাম, রীমু, সৌরভ, মৃদুল হাসান, আনিছুর রহমান, মমিন বাবু, আবীর প্রমুখ।

২২ মে ২০১৫

নাটক

 >  Last ›