রাত ৮টা, ২৭ জুলাই এবং

বিকাল ৩ টা ৫ মি, ২৮ জুলাই, চ্যানেল আই

বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপের ১২২তম পর্ব

জামাতকে নিষিদ্ধ করা প্রসঙ্গে আলোচনা

অতিথি: হাসানুল হক ইনু, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, ডঃ রওনক জাহান ও হুমায়ুন কবির
পরিচালনা: আকা রেজা গালীব


ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপের এবারের আলোচনায় প্যানেলিস্ট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ডঃ রওনক জাহান এবং সাবেক রাষ্ট্রদূত ও বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইন্সটিটিউটের ভাইস প্রেসিডেন্ট হুমায়ুন কবির।

এবারের আলোচনায় জামাত ইসলামকে নিষিদ্ধ করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। জামাতকে নিষিদ্ধ করার ব্যাপারে সরকারের নীতিগত অবস্থানের কোন পরিবর্তন হয় নি বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। এ জন্য সরকার আদালতের নির্দেশের অপেক্ষায় আছে বলে জানান তিনি।

আলোচনায় আরও উঠে এসেছে বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিএনপি’র অবস্থান। বিএনপি কি বিলুপ্ত হতে চলেছে কিনা সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। বিএনপি নেতা হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন বর্তমান সরকারের জনসমর্থন না থাকার কারণেই তারা বিএনপিকে ভাঙ্গার চেষ্টা করতে পারে।

এ-পর্বে দর্শকদের যে প্রশ্নগুলো নিয়ে আলোচনা হযেছে সেগুলো হলো-
১. বিএনপিকে ভাঙ্গার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রশ্ন হলো, বিএনপির মতো একটি দল ভাঙ্গার চেষ্টা হলে তা বাংলাদেশের রাজনীতিতে কী প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে?
২. ভারত আন্তঃ নদী সংযোগ প্রকল্প আবারো চালু করতে চাইছে বলে সেদেশের গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে। শুধু আপত্তি জানানো ছাড়া বাংলাদেশ এখন এ ব্যাপারে আর কী করতে পারে?
৩. রাজনের নির্মম হত্যাকাণ্ড কি এটা প্রমান করে যে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে গেলেও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ ব্যর্থ?
৪. দর্শকরা অতিরিক্ত বিজ্ঞাপনের যন্ত্রণায় বাংলাদেশের টেলিভিশন অনুষ্ঠান দেখতে না পেরে ভারতের চ্যানেল নির্ভর হয়ে যাচ্ছেন। প্রশ্ন হলো, টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন নিয়ন্ত্রণের কোন ব্যবস্থা কি নেয়া যেতে পারে?

সাতদিন/এমজেড

২৭ জুলাই ২০১৫

আড্ডা ও আলোচনা

 >  Last ›